নিজস্ব প্রতিবেদক

বুধবার , ২০ ডিসেম্বর ২০১৭

সাফের ফাইনালে বাংলাদেশে

জয়রথ ছুটেই চলছে বাংলাদেশের। আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানকে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। আঁখির জোড়া গোলে প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ৩-০ গোলের দারুণ জয় পেয়েছে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। এ জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই আসরের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল দল। শিরোপা জয়ের মঞ্চে তাদের প্রতিপক্ষ ভারত।  

 পৌষের সকাল। কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শীতের স্নিগ্ধ হাওয়া। তীব্র শীতের মাঝেই মাঠে উচ্ছল একদল কিশোরী। লাল সবুজের এই স্বপ্নবাজ  কিশোরীদের স্বপ্ন আগের ম্যাচের ফলাফলকে ছাপিয়ে আরো নতুন কিছু করার।

ম্যাচের শুরু থেকেই ভুটানের বিপক্ষে আগ্রাসী বাংলাদেশ। মারিয়া, আখিদের একের পর আক্রমণ হার কাঁপানো শীত ছাপিয়ে ছড়িয়েছে উত্তাপ। ১০ মিনিটে লিড নেয়ার সুযোগ পেয়েছিলো ছোটন শীষ্যরা। কিন্তু ভূটান গোলরক্ষকের দৃঢ়তায় এ যাত্রায় হতাশ হতে হয় মারিয়াকে।

তিন মিনিট পরই মারিয়ার ব্যর্থতা ঘুচিয়ে সমর্থকদের আনন্দে ভাসায় ছোটনের দল। মার্জিয়ার কর্নারে আলতোভাবে মাথা ছুঁইয়ে তা জালে জড়িয়েছেন আঁখি। ৩৭ মিনিটে লিডটা দ্বিগুণ করতে পারতো ছোটনের দল। কিন্তু অনুচিংয়ের শট শুরুতে বারে লেগে ফিরে আসলে, ফিরতি চেষ্টায়ও তা জালে জড়াতে পারেননি নীলা।

বাংলার কিশোরীদের একের পর এক আক্রমণ সামাল দিতে যেখানে ভুটান গোলরক্ষক কারমাকে হিমশিম খেতে হয়েছে, সেখানে ঠায় দাঁড়িয়ে ছিলেন স্বাগতিক গোলরক্ষক মাহমুদা। প্রথম ৪০ মিনিটে একবারো ভুটানের মেয়েরা বাংলাদেশের সীমানায় বল নিয়ে আসতে পারেনি। প্রথমার্ধ শেষে ১-০ তে এগিয়ে বাংলাদেশ।

অবশেষে ৫৬ মিনিটে ত্রাণকর্তা সেই মার্জিয়া ও আঁখি। মর্জিয়ার কর্নার আর আখির শট। দুইয়ের জাদুতে স্কোররাইন ২-০ করে বাংলাদেশ। গেল ম্যাচে পুরোটা জুড়েই আধিপত্য দেখিয়েছেন মিডফিল্ডার মনিকা ও ফরোয়ার্ড তহুরা। তবে এ ম্যাচে ঠিক সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি কোচের তুরুপের তাস তহুরা। তাইতো তাকে পরিবর্তন করে কোচ মাঠে নামান সাজেদাকে।

বদলী হিসেবে নেমেই ঝলক দেখান এই ফরোয়ার্ড। তার গোলেই ৩-০ তে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। শেষদিকে গোলের ব্যবধান আরো বড় করতে পারতো বাংলাদেশ। কিন্তু ভুটান ফুটবলারদের রক্ষণাত্মক ফুটবলে স্কোরলাইন আর বড় হয়নি। ৩-০ গোলে জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই প্রথমবারের মত আয়োজিত এই আসরের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ।


সর্বশেষ সংবাদ